হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি চান বাবা-মা

8সিলেটের সকাল রিপোর্টঃশহরতলীর কুমারগাঁওয়ে শিশু শেখ সামিউল আলম রাজনকে পিটিয়ে হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করা হবে আগামীকাল ৮ নভেম্বর। যুক্তি-তর্ক উপস্থাপনশেষে গত ২৭ অক্টোবর সিলেট মহানগর দায়রা জজ আকবর হোসেন মৃধা এ তারিখ নির্ধারণ করেছিলেন।
এদিকে, হত্যাকারীদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছেন রাজনের বাবা শেখ আজিজুর রহমান আলম ও মা লুবনা বেগম। তারা  বলেন, তাদের প্রতিবন্ধী ছেলেকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তাই, তারা হত্যাকারীদের ফাঁসি এবং দ্রæত রায়ের কার্যকারিতা দেখতে চান।

rajon Familyগত ৮ জুলাই ভোরে ‘চোর’ সন্দেহে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করা হয় ১৩ বছরের শিশু রাজনকে। নির্যাতনকারীরাই শিশুটিকে পেটানোর ভিডিও ধারণ করে এবং তা ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়। ২৮ মিনিটের ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগে মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ইন্সপেক্টর সুরঞ্জিত তালুকদার গত ১৬ আগস্ট ১৩ জনের বিরুদ্ধে এ হত্যা মামলার  চার্জশিট দাখিল করেন। ২২ আগস্ট আদালত মামলার চার্জশিট গ্রহণ করেন। কারাগাওে আটক মামলার চার্জশিটভুক্ত ১১ আসামী হচ্ছে-জালালাবাদ থানার কুমারগাঁও এলাকার শেখপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল মালেকের পুত্র কামরুল ইসলাম (২৪) ও তার সহোদর মুহিত আলম (৩২) ও  আলী হায়দার ওরফে আলী (৩৪),চৌকিদার ময়না মিয়া ওরফে বড় ময়না (৪৫), জালালাবাদ থানার টুকেরবাজার ইউনিয়নের পূর্ব জাঙ্গাইল গ্রামের মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিনের পুত্র ভিডিওচিত্র ধারণকারী নূর আহমদ ওরফে নুর মিয়া (২০), দুলাল আহমদ (৩০), আয়াজ আলী (৪৫), তাজ উদ্দিন বাদল (২৮), ফিরোজ মিয়া (৫০), আছমত আলী (৪২) ও রুহুল আমিন (২৫)। কামরুল, তাজ উদ্দিন বাদল ও রুহুল আমিন ছাড়া বাকি ৮ জন এ ঘটনায় আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে। গত ৭ সেপ্টেম্বর মামলাটি বিচারের জন্য মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তর করেন চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাহেদুল করিম। এরপর ১৬ সেপ্টেম্বর এই আদালতে মামলার প্রথম শুনানী অনুষ্ঠিত হয়। ২২ সেপ্টেম্বর মামলার চার্জ গঠন করা হয়।

শেয়ার করুন