যেভাবে নূর হোসেনকে হস্তান্তর করা হলো!

38192e643489fd2ab095db265f34dafb-jessore-13--Others-সিলেটের সকাল ডেস্ক : নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে ফেরত দিয়েছে ভারত। আজ বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার কিছু পরেই তাঁকে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে হস্তান্তর করে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) একটি সূত্র নূর হোসেনকে ফেরত দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
নূর হোসেনকে ফেরত দেওয়া হচ্ছে—এমন খবর ছড়িয়ে পড়লে বেনাপোল সীমান্তে ভিড় জমে গণমাধ্যম কর্মীদের। অপেক্ষায় থাকেন সবাই। সেই অপেক্ষার অবসান হয় রাত সাড়ে ১১টার কিছু পরে। রাত ১১টা ২০ মিনিটে বেনাপোল বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান একটি হেলমেট একটি বুলেট প্রুফ জ্যাকেট নিয়ে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তের নো-ম্যানস ল্যান্ডে ঢোকেন। অপূর্ব হাসানের পেছন পেছন গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি মাইক্রোবাস নো-ম্যানস ল্যান্ডে প্রবেশ করে। এ সময় গণম্যাধ্যম কর্মী ও ক্যামেরাগুলো ওই গাড়িকে লক্ষ্য করছিল। এমন সময় বেনাপোল সীমান্তের রেলনাইল বাইপাস সড়কের পাশে নূর হোসেনকে বাংলাদেশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। তল্লাসি চৌকি দিয়ে গাড়িগুলো বের না হয়ে রেলনাইল বাইপাস সড়কের পাশের পথ দিয়েই নূর হোসেনকে নিয়ে কয়েকটি গাড়ি বাংলাদেশে প্রবেশ করে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বেনাপোল বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অপূর্ব হাসান জানান, ভারতের কর্তৃপক্ষ নূর হোসেনকে বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দেয়। এরপর নূর হোসেনকে নিয়ে ঢাকার দিকে রওনা দেওয়া হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনকে ফেরত দিয়েছে ভারত। আজ বৃহস্পতিবার রাতে তাঁকে যশোরের বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে হস্তান্তর করে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

বাংলাদেশের কারাগারে আটক উলফা নেতা অনুপ চেটিয়াকে দুই সঙ্গীসহ ভারতের কাছে হস্তান্তরের একদিন পর নূর হোসেনকে ফেরত দেওয়া হলো।
বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) একটি সূত্র নূর হোসেনকে ফেরত দেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
গত বছরের ২৭ এপ্রিল সাত খুনের পরে ভারতে পালিয়ে যান নূর হোসেন। ওই বছরের ১৪ জুন কলকাতার বাগুইআটিতে পুলিশের হাতে ধরা পড়েন তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ভারতে অবস্থানের মামলা হয়। গত মাসে ভারত সরকার সেই মামলা প্রত্যাহার করে নিলে নূর হোসেনের দেশে ফেরার পথ সুগম হয়।
সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার ভারতের স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে পাঁচটার দিকে কলকাতার দমদম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে নূর হোসেনকে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। কর্মকর্তারা তাঁর নামে একটি পারমিট ইস্যু করে সেখানকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাহায্যে কঠোর নিরাপত্তায় নূর হোসেনকে নিয়ে যশোরের বেনাপোলের দিকে রওনা দেন।
নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) খন্দকার মহিদ উদ্দিন সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে  বলেন, নূর হোসেনের বিরুদ্ধে আদালতের জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নিয়ে পুলিশের একটি দল যশোরের বেনাপোলে গিয়েছে। এসপি বলেন, নূর হোসেনের বিরুদ্ধে সাত খুনসহ সব মিলিয়ে ১৩টি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। এর মধ্যে বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইনে এক বছরের কারাদণ্ডও হয়েছে তাঁর।
গত বছরের ২৭ এপ্রিল ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোড থেকে দুটি গাড়িতে থাকা সাতজনকে অপহরণ করা হয়। এর মধ্যে একটি গাড়িতে ছিলেন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম এবং তাঁর সহযোগীরা। অন্য একটি গাড়িতে ছিলেন নারায়ণগঞ্জ আদালতের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী চন্দন সরকার ও তাঁর গাড়িচালক। তিন দিন পরে অপহৃতদের লাশ ভেসে ওঠে নারায়ণগঞ্জের উপকণ্ঠে শীতলক্ষ্যা নদীতে। এ ঘটনা সারা দেশে হইচই ফেলে দেয়।
অপহরণের পরদিন অপহৃত নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম ফতুল্লা থানায় নূর হোসেনসহ ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেন। মামলার এজাহারে ‘র‍্যাবকে দিয়ে’ অপহরণের অভিযোগ করা হয়। তিন দিন পরে লাশ উদ্ধার হলে মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তরিত হয়। পরে আইনজীবী চন্দন সরকারের জামাতা বিজয় কুমার পাল বাদী হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে আরেকটি হত্যা মামলা করেন।
কাউন্সিলর নজরুল ইসলামের শ্বশুর শহীদুল ইসলাম প্রথমে র‍্যাবের বিরুদ্ধে ‘ছয় কোটি টাকা নিয়ে’ অপহরণ ও হত্যার অভিযোগ করেন। অর্থায়নকারী হিসেবে তিনি নূর হোসেনকে অভিযুক্ত করেন। পরে তদন্তে এ ঘটনার সঙ্গে নারায়ণগঞ্জে র‍্যাব-১১-এর কর্মকর্তাদের সংশ্লিষ্টতা বের হয়ে আসে। র‍্যাব-১১-এর তৎকালীন অধিনায়ক তারেক সাঈদ মোহাম্মদ, মেজর আরিফ হোসেন, লে. কমান্ডার এম এম রানাসহ অন্য সদস্যরা মিলে ওই সাতজনকে অপহরণের পরে হত্যা করে পেট চিরে লাশ নদীতে ফেলে দেন বলে তদন্তে বেরিয়ে আসে। প্রায় এক বছর তদন্তের পরে গত এপ্রিলে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। এতে র‍্যাবের ওই তিন কর্মকর্তাসহ ৩৫ জনকে অভিযুক্ত করা হয়।
নূর হোসেন এ মামলায় অভিযোগপত্রভুক্ত ১ নম্বর আসামি। অভিযুক্ত ৩৫ জনের মধ্যে বর্তমানে র‍্যাবের তিন কর্মকর্তাসহ ২২ জন গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে রয়েছেন। ২২ জনই ঘটনার সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। পলাতকদের মধ্যে র‍্যাবের আট সদস্য রয়েছেন।
নূর হোসেনের উত্থান
ট্রাকচালকের সহকারী হিসেবে জীবন শুরু করা নূর হোসেন ১৯৯২ সালে বিএনপির সাবেক সাংসদ গিয়াসউদ্দিনের আশীর্বাদপুষ্ট হয়ে যোগ দেন বিএনপিতে। সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে তিনি শামীম ওসমানের হাত ধরে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। বাংলাদেশ ট্রাকচালক শ্রমিক ইউনিয়ন কাঁচপুর শাখার সভাপতি হন। তাঁর বিরুদ্ধে দাঙ্গা-হাঙ্গামাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১৩টি মামলা হয়। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে তাঁকে ধরিয়ে দিতে ইন্টারপোলে রেড নোটিশও পাঠানো হয়েছিল। ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনের পর তিনি এলাকায় ফেরেন। পরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হন। গত বছর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে তিনি ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। কাঁচপুরে শীতলক্ষ্যা নদী দখল করে বালু-পাথরের ব্যবসা, উচ্ছেদে বাধা, পরিবহনে চাঁদাবাজিসহ নানা কারণে বারবার আলোচনায় এসেছেন তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ ও ফতুল্লা থানায় ছয়টি হত্যা মামলাসহ ২২টি মামলা রয়েছে।

শেয়ার করুন