কানাইঘাটে পাথর ব্যবসায়ী হত্যায় দুই সহোদরের যাবজ্জীবন

1134সিলেটের সকাল : সিলেটের কানাইঘাটে পাথরব্যবসায়ী জহির উদ্দিন হত্যায় দুই সহোদরের যাবজ্জীবন দণ্ড দিয়েছেন আদালত। দণ্ডিতরা হলেন কানইঘাট উপজেলার সাউদ গ্রামের বড়হুনার ছেলে জাহাঙ্গীর ও আলমগীর । একই সাথে তাদের বিশ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরো অতিরিক্ত ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত ।

রোববার দুপুরে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোঃ সাইফুজ্জামান হিরো এ রায় প্রদান করেন ।

আদালত সূত্রে জানাযায় ,২০০৩ সালের ১৯ অক্টোবর লোভাছড়া নদী থেকে পাথর বোঝাই নৌকা নিয়ে আসছিলেন কানাইঘাট উপজেলার জুলাই গ্রামের মৃত নুর উদ্দিনের ছেলে জামিল উদ্দিন ও জহির উদ্দিন নদীর তিন গাঙ্গের মুখে পৌছামাত্র ওই এলাকার জাহাঙ্গির ও আলমগীর পাথর অল্প দামে কিনে নেয়ার চেষ্টা করেন। এতে তারা রাজি না হওয়ায় জোরপূর্বক পাথর নেওয়ার চেষ্টা করেন ওই দুই সহোদর।

এসময় বাধা দিলে তাদের ওপর পাথর দিয়ে আঘাত করেন। জহির মারাত্মক আহত অবস্থায় পানিতে লুটিয়ে পড়েন।তাকে উদ্ধার করে ওইদিন প্রথমে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন থাকাবস্থায় পরদিন সন্ধ্যায় জহির মৃত্যু বরণ করেন ।

এ ঘটনায় তার ভাই জামিল উদ্দিন বাদি হয়ে দুইজনের নামোল্লেখ করে কানাইঘাট থানায় মামলা করেন। দীর্ঘ তদন্ত শেষে কানাইঘাট থানার ওসি মো. আব্দুস ছালাম অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

এতে জাহাঙ্গীর, আলমগীর, আব্বাছ উদ্দিন, মুস্তাক উদ্দিন, ফায়াজ উদ্দিনকে অভিযুক্ত করা হয়। আদালত তা আমলে নিয়ে ২০০৫ সালের ২৬ জুলাই অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার কাজ শুরু করেন ।

মামলার দীর্ঘ শুনাণী ও সাক্ষীদের জবানবন্দি শেষে দুই আসামীর বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে রোববার যাবজ্জীবন সাজা অপর তিনজনকে বিচারক খালাস প্রদান করেন। রাষ্ট্র পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবির বাবুল ও আসামী পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট সৈয়দ মহসিন আলী ।

শেয়ার করুন