কলকাতার রবীন্দ্র সদনে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ

রবীন্দ্র সদনে বাংলাদেশের ছবি দেখার জন্য সিনেমাপ্রেমীদের লাইন l

রবীন্দ্র সদনে বাংলাদেশের ছবি দেখার জন্য সিনেমাপ্রেমীদের লাইন l

সত্যিই যেন দুই ঘণ্টার জন্য কলকাতার সংস্কৃতিকেন্দ্র রবীন্দ্র সদন হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের এক টুকরা রণক্ষেত্র। এই রণক্ষেত্রই স্মরণ করিয়ে দিয়েছে রক্তঝরা একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের নানা দিনগুলোর কথা। গত সোমবার বেলা সোয়া তিনটায় কলকাতার রবীন্দ্র সদনে প্রদর্শিত হয়েছিল কলকাতার আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উত্সবে যোগ দেওয়া বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র ’৭১-এর সংগ্রাম। দুই ঘণ্টার এই চলচ্চিত্র যেন বশ করে রেখেছিল প্রেক্ষাগৃহের দর্শকদের।
ছবি প্রদর্শনীর পর কথা হচ্ছিল এক দর্শকের সঙ্গে। শুভজিৎ মণ্ডল। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন। মুক্তিযুদ্ধের ছবি দেখতে এসেছেন। বললেন, ‘আমার বাপ-দাদাদের আদি বাসস্থান বাংলাদেশে। মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁরা এখানে পালিয়ে এসেছেন। তাঁরাই বিভিন্ন সময় মুক্তিযুদ্ধের নানা কাহিনি শুনিয়েছেন আমাকে। তাই সেই মুক্তিযুদ্ধের ছবি দেখতে আজ ছুটে এসেছি। এত বর্বরতা চালিয়েছে পাক সেনারা! ভাবতে পারছি না।’
’৭১-এর সংগ্রাম-এর পরিচালক মনসুর আলী ছবি প্রদর্শনের আগে মঞ্চে উঠে দর্শকদের বলেছিলেন, ‘আমি মুক্তিযুদ্ধের কথা শুনে অনুপ্রাণিত হয়েছি। তাই ছবিটি তৈরি করেছি। দর্শকদের ভালো লাগলে আমার শ্রম সার্থক হবে।’
এদিন বেলা দুইটায় আরেকটি প্রেক্ষাগৃহ শিশির মঞ্চে দেখানো হয় বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক আরেকটি ছবি অমি ও আইসক্রিম’অলা। ফরিদুর রেজা সাগরের গল্প অবলম্বনে ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ও সুমন ধর পরিচালিত এই ছবিটিও মন কেড়ে নিয়েছে কলকাতার দর্শকদের। আবুল হায়াত, তারিক আনাম খান, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়ের অভিনয় দর্শকদের প্রশংসা কুড়িয়েছে। অমি ও আইসক্রিম’অলা ছবিটি প্রদর্শনের আগে পরিচালক সুমন ধরও বলেছেন, এটি তাঁর জীবনের প্রথম ছবি। বিদেশের প্রেক্ষাগৃহে এর প্রথম প্রদর্শনী

শেয়ার করুন