মাহমুদুর রহমানসহ নয়জনের বিচার শুরু

1সিলেটের সকাল ডেস্ক : দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছেন আদালত। বৃহস্পতিবার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আলী মাসুদ শেখ ২০১৩ সালে রাজধানীর ফার্মগেটে বাসে ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগে করা মামলায় এই অভিযোগ গঠন করেন। একই সঙ্গে আদালত আসামিপক্ষের করা অব্যাহতির আবেদন নাকচ করেন। আদালতে হাজির থাকা মাহমুদুর রহমান নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ন্যায়বিচার চান। অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে এই মামলার বিচারকাজ শুরু হলো। সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আদালত আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি তারিখ ধার্য করেছেন।
এই মামলায় মাহমুদুর রহমান ছাড়া উল্লেখযোগ্য অন্য আসামিরা হলেন স্থানীয় সাবেক ওয়ার্ড কমিশনার আনোয়ারুজ্জামান আনোয়ার ও ওয়ার্ড শাখা বিএনপির সভাপতি লুৎফর রহমান।
মাহমুদুর রহমানের অন্যতম আইনজীবী জয়নাল আবেদীন মেজবাহ পরে বলেন, চলতি বছরের ১৪ আগস্ট দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা একটি মামলায় মাহমুদুর রহমানকে তিন বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। তাঁকে ২০১৩ সালের ১১ এপ্রিল কারওয়ান বাজারে আমার দেশ কার্যালয় থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ ছাড়া আদালত অবমাননার দায়ে ২০১০ সালে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ তাঁকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দেন।
জয়নাল আবেদীন বলেন, মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে ৬৮টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচটি মামলায় অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার এই মামলায় জামিনের আবেদন করা হলে আদালত তা নাকচ করেন। তিনি ৬০টি মামলায় জামিনে আছেন।
২০১৩ সালের ১৭ মার্চ ফার্মগেট এলাকায় ৬ নম্বর রুটের একটি যাত্রীবাহী বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় বাসের চালক আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে তেজগাঁও থানায় মামলা করেন। গত বছরের এপ্রিলে এই মামলায় মাহমুদুর রহমানসহ নয়জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।
বৃহস্পতিবার শুনানিতে মাহমুদুর রহমানের পক্ষে আইনজীবীরা আদালতে বলেন, এই মামলার ঘটনার সময় মাহমুদুর রহমান ছিলেন না। তাঁকে রাজনৈতিকভাবে হয়রানি করতে এই মামলায় জড়ানো হয়েছে। তদন্ত কর্মকর্তা সঠিকভাবে তদন্ত না করেই অভিযোগপত্র দিয়েছেন। মামলায় মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করার মতো কোনো উপাদান নেই।
রাষ্ট্রপক্ষ থেকে বলা হয়, মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের উপাদান রয়েছে। তাঁর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ উসকানিতে গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে সাক্ষ্য-প্রমাণ রয়েছে।
রাষ্ট্রপক্ষ ও আসামিপক্ষের শুনানি শেষে আদালত অভিযোগ গঠনের আদেশ দেন। আসামিপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, জয়নাল আবেদীন মেজবাহ প্রমুখ।

শেয়ার করুন