সিলেটে অত্যাধুনিক মাড়াই প্রদর্শনী

111সিলেটের সকাল রিপোর্ট : দেশজুড়ে খাদ্যশষ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি এবং অকৃষি জমিগুলো ধান চাষের আওতায় আনতে অত্যাধুনিক ধানকাটা ও মাড়াই মেশিন ‘কম্বাইন্ড হারভেষ্ট’ প্রদর্শনী করছে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর। কৃষিকাজ সহজলভ্য ও নতুন প্রজন্মকে কৃষিকাজে উৎসাহিত করতে এ প্রদর্শনীর আয়োজন।

ডিসেম্বরের শুরু থেকে কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সিলেট জেলার বিভিন্ন উপজেলায় এ প্রদর্শনী শুরু করেছে। ইতোমধ্যে সিলেট সদর উপজেলাসহ জেলার ৪টি উপজেলায় এ প্রদর্শনী সম্পন্ন হয়েছে এবং ক্রমান্বয়ে প্রতিটি উপজেলায় এ প্রদর্শনী করা হবে বলে জানিয়েছেন সিলেট জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরে উ-পরিচালক মো. খাইরুল বাশার।

তিনি জানান, এর আগে উদ্ভাবিত অনেক মাড়াই মেশিন সরবরাহ করা হলেও এবারকার প্রদর্শনীতে এসেছে ‘কম্বাইন্ড হারভেষ্ট’ নামের অত্যাধুনিক ধানকাটা ও মাড়াই মেশিন। এ যন্ত্র একসাথে ধানকেটে মাড়াই করে প্যাকেট (বস্তাবন্দি) করে দিতে পারে। আলাদা করে দিতে পারে খড় ও চিটা। নূন্যতম ১২ লাখ টাকায় এ মেশিন সরবারাহ করতে পারবে বিভিন্ন কোম্পানী। লোকবলের অভাব দূর করে কৃষিকাজকে আরো সহজতর ও উৎপাদন বৃদ্ধি করে দেশকে খাদ্যশষ্যে স্বনির্ভর করে তোলাই এ প্রদর্শনীর প্রধান লক্ষ্য।

সিলেট সদর উপজেলার খাদিমপাড়ার দত্তগ্রামের মুজিবুর রহমান ও আব্দুর রহিমের ক্ষেতের জমিতে এবার বাম্পার ফলন ঘটেছে আমন ও সাইল ধানের। এ ধান কাটার জন্য লোকবলের অভাব থাকায় অত্য্ধাুনিক ধানকাটা ও মড়াই মেশিন ‘কম্বাইন্ড হারভেষ্ট’ এর প্রদর্শনী করে জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর।

প্রদর্শনীতে প্রধান অতিথি হয়ে মেশিন পরিচালনা করেন সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ। খাদিমপাড়া ইউনিয়নের সুরমা গেইটের খিদিরপুরে এ প্রদর্শনী অনুষ্টানে অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খাদিপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বিলাল, সিলেট সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সারওয়ারুল আহসান, সাবেক ইউপি মেম্বার আব্দুর রহিম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারন কর্মকর্তা মোহাইমিনুর রশিদ, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফজলে মঞ্জুর ভূইয়া, এমরান আহমেদ, জাহেদুল ইসলাম, আতিকুর রহমান, গিয়াস উদ্দিন প্রমুখ।

শেয়ার করুন