কানাইঘাটে অর্থ প্রতিমন্ত্রীর আগমন নিয়ে দ্বিধা বিভক্ত

Picture  r 1-1কানাইঘাট সংবাদদাতা :: বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আগামী শনিবার কানাইঘাট উপজেলা যুবলীগের উদ্যোগে স্থানীয় রামিজা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আয়োজিত  সমাবেশে অর্থপরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান এমপির আগমন নিয়ে আওয়ামীলীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা দ্বিধা বিভক্ত হয়ে পড়েছেন।

যুবলীগের এ সমাবেশে অর্থ পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নান এমপির কানাইঘাট আগমন সফল করার জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে গত কয়েকদিন ধরে ব্যাপক মাইকিং করা হচ্ছে। পাশাপাশি উপজেলা জুড়ে পোস্টারিং ও পৌর শহরে বেশ কয়েকটি তোরান নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু সমাবেশের দুই দিন পূর্বে দলীয় অভ্যন্তরীন বিরোধ নিয়ে মন্ত্রীর আগমনকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার কানাইঘাট প্রেসক্লাবে উপজেলা আওয়ামীলীগ যুবলীগ, শ্রমিকলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা সংবাদ সম্মেলন করায় এম.এ মান্নান এমপির আগমন নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব বিরাজ করছে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে।

ইতিমধ্যে অর্থ পরিকল্পনা মন্ত্রীর কানাইঘাট সফরের বিষয়টি অর্থ মন্ত্রণালয় ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব মোঃ আবুল কালাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার অফিসার ইনচার্জ বরাবরে ফ্যাক্সযোগে পাঠিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত মন্ত্রী দলীয় রেষারেশির কারনে কানাইঘাটে যুবলীগের সমাবেশে আসা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

তবে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাসুক আহমদ জানিয়েছেন, যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর সমাবেশে মন্ত্রী এম.এ মান্নান আসবেন, এটা নিশ্চিত। অপরদিকে বৃহস্পতিবার কানাইঘাট প্রেসক্লাবে মন্ত্রীর আগমন নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক এনামুল হক জানান, যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর জনসভায় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম.এ.মান্নান এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন এমন ঘোষণা দিয়ে মাইকিং করা হলেও এ সমাবেশের সাথে উপজেলা ও পৌর যুবলীগের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের কোন সম্পৃক্ততা নেই। এম.এ মান্নান এমপির মতো একজন সজ্জন মন্ত্রীকে বিতর্কিত করার জন্য উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাসুক আহমদ সহ ৩/৪ জন যুবলীগের নামধারী জনবিচ্ছিন্ন নেতা উপজেলা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, কৃষকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ ও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সাথে কোন ধরনের আলাপ আলোচনা ছাড়াই যুবলীগের নাম ব্যবহার করে সমাবেশের আয়োজন করেছে। উক্ত জনসভার সাথে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের নিম্নতম সংশ্লিষ্টতা নেই। যে জায়গায় সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে তা জামায়াত শিবির অধ্যুসিত এলাকা।

গত ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনের পূর্বে উক্ত জনসভা স্থলের অদূরে জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীদের হাতে নির্মমভাবে হত্যার শিকার হন যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম। এ সমাবেশস্থলে আসলে এম.এ মান্নান এমপির জীবনের নিরাপত্তা হুমকির সম্মুখীন হতে পারে।

যুবলীগের নেতারা সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, মন্ত্রী মহোদয় কানাইঘাটে আসবেন এটা দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের জন্য আনন্দের বিষয়। আমরা চাই অর্থ পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী কানাইঘাটে দলীয় সমাবেশে আসুন, কিন্তু দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সাথে সমন্বয়ের মাধ্যমে পৌর শহরে জনসভার স্থান নির্ধারন করে সমাবেশের আয়োজন করা হোক। মন্ত্রীর আগমন নিয়ে যুবলীগের আহ্বায়ক মাসুক আহমদ, যুগ্ম আহ্বায়ক মীর মোহাম্মদ আব্দুল্লাহসহ ৩/৪জন মিলে প্রশাসন পাড়াসহ সব জায়গায় ব্যাপক চাঁদাবাজি করে যাচ্ছেন এমনও অভিযোগ আনেন সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত যুবলীগের একাংশের নেতাকর্মীরা। এর মাধ্যমে দলের ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুন্ন হচ্ছে তাদের দাবী।

এছাড়া মাসুক আহমদ যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম নিহত হওয়ার পর দলের পক্ষ থেকে কোন প্রতিবাদ সভা না করে সে সময় আত্মগোপন করায় উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির অধিকাংশ সদস্য তার প্রতি ক্ষুদ্ধ হয়ে পদত্যাগ করে জেলা নেতৃবৃন্দকে বিষয়টি অবহিত করেছিলেন। তিনি দলীয় নেতাকর্মীর কাছ থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন। দলের কোন নেতাকর্মীদের সাথে সম্পর্ক না রেখে মন্ত্রী মহোদয়কে দলীয় ব্যানারে সমাবেশে আনার মাধ্যমে বিতর্কিত কর্মকান্ড চালাচ্ছেন মাসুক আহমদ।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সদস্য আব্দুল্লাহ আল মুমিন, ফরিদ উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, আলম আহমদ, পৌর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ ইয়াহিয়া, সেলিম উদ্দিন, উপজেলা আ’লীগের সদস্য মাহবুবুর রহমান, পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নছির উদ্দিন প্রধান, স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহ্বায়ক আজমল হোসেন, পৌর যুবলীগের সদস্য শহিদুর রহমান, কাওছার আহমদ, দেলোয়ার হোসেন, শাহীন আহমদ, শ্রমিকলীগের সাবেক আহ্বায়ক মোঃ জসিম উদ্দিন, শ্রমিকলীগ নেতা নুরুল ইসলাম জালালী, জীবান আহমদ, আলমগীর হোসেন, ছাত্রলীগ নেতা আখতারুজ্জামন হিমেলসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।

এছাড়া যুবলীগের সমাবেশ নিয়ে নিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করায় অনাকাংখিত ঘটনা এড়াতে বিষয়টি বিবেচনার জন্য উপজেলা আ’লীগের আহ্বায়ক পৌর মেয়র লুৎফুর রহমান ও সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ সিরাজুল ইসলাম কর্তৃক জেলা আ’লীগের সভাপতি আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ান ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরীর বরাবরে লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে সাংগঠনিকভাবে গৃহীত ব্যবস্থা গ্রহণের জেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মাসুক আহমদ ও যুগ্ম আহ্বায়ক নাজিম উদ্দিন ও মীর মোহাম্মদ আব্দুল্লার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, যারা মন্ত্রীর আগমন নিয়ে বিরোধিতা করে সংবাদ সম্মেলন করেছে তারা যুবলীগের কেউ নয়। যুবলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনের লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় যুবলীগ ও সিলেট জেলা যুবলীগের নেতৃবৃন্দের নির্দেশে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। উপজেলা যুবলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এ সমাবেশের সিন্ধান্ত গৃহীত হয়। উপজেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে এবং সকলের পরামর্শ গ্রহণ করে সমাবেশ সফল করার জন্য সবধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। কানাইঘাটবাসীর দাবি দাওয়া আদায়ে অর্থ পরিকল্পনা মন্ত্রী এম.এ মান্নান এমপির সমাবেশ সফল করার জন্য তিনি দলীয় নেতাকর্মীর সহ সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন। যারা এর বিরোধিতা করছে তারা দলের অগ্রযাত্রা ব্যহত করতে সমাবেশ নিয়ে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে, এরা উন্নয়ন চায় না।

এছাড়া মাসুক আহমদ বলেন, উক্ত সমাবেশে যুবলীগের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. আহমদ আল কবির, এড. বেলাল হোসেন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়জুল হক আতিক ছাড়াও সিলেট জেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত থাকবেন। সমাবেশকে সফল করার জন্য যুবলীগের পক্ষ থেকে সব ধরনের শো-ডাউনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে যুবলীগের উদ্যোগে কর্মীসমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাবেশে হাজার হাজার যুবলীগের নেতাকর্মীরা যোগদান করেছেন।

শেয়ার করুন