৮ বছরেও কিবরিয়া হত্যা মামলার অগ্রগতি হয়নি

৮ বছরেও শেষ হয়নি সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যার বিচার কাজ। ২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারি সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া ও তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুর হুদাসহ ৫ জনকে গ্রেনেড হামলা চালিয়ে হত্যা করা হয়। রোববার এই মর্মানি-ক হত্যাকান্ডের ৮ বছর পূর্তি।এদিকে, গত বছরের ৫ জানুয়ারী মামলাটি পুনরায় অধিকতর তদনে-র নির্দেশ দিয়েছেন সিলেট দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক। এখন তদন- প্রায় শেষ পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে বলে জানান সিআইডির সিলেট রেঞ্জের এএসপি মেহেরুন্নেছা পারুল।

২০০৫ সালের ২৭ জানুয়ারী সন্ত্রাসীদের গ্রেনেড হামলায় সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার সাথে তার ভাতিজা শাহ মঞ্জুরুল হুদা ছাড়াও নিহত হয়েছিলেন স’ানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী আবুল হোসেন, সিদ্দিক আলী ও আব্দুর রহিম। হামলায় আহত হন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমানে সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মো. আবু জাহির, সাংগঠনিক সম্পাদক (বর্তমানে অব্যাহতি প্রাপ্ত) রাজন চৌধুরীসহ ৭০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী। এ ঘটনার পর নিহত ৩ জনের পরিবারকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ১ লাখ টাকা করে, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা ৫০ হাজার টাকা করে দেন। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমপ্রতি নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২ লাখ এবং আহতদের প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে দেন। এ টাকায় তারা এখন অনেকটাই স্বাবলম্বী হয়েছেন। কিন’ হত্যাকান্ডের ৮ বছরেও বিচারকাজ শুরু না হওয়ায় নিহতদের পরিবারের সদস্যরা হতাশা প্রকাশ করেছেন।

এ ব্যাপারে মামলার বাদিপক্ষের আইনজীবী আলমগীর ভূইয়া বাবুল বলেন, অধিকতর চার্জশীটে প্রচুর তথ্য উপাত্ত থাকলেও শুধুমাত্র লুৎফুজ্জামান বাবর ছাড়া কাউকে আসামী করা হয়নি। তাই শাহ এএমএস কিবরিয়ার স্ত্রী আসমা কিরবিয়ার পক্ষে আমি নারাজি আবেদন করলে বিচারক শুনানী শেষে মামলাটি পুনঃতদনে-র আদেশ দেন। বর্তমানে মামলাটি তদন- করছেন সিলেটের সিআইডির এএসপি মেহেরুন্নেছা পারুল। এ তদনে-ও যদি গ্রেনেড সরবরাহকারী এবং মদদদাতাদের নাম বের না হয় তা হলে আবারও আমরা নারাজি দিতে পারি।

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়া তনয় ড. রেজা কিবরিয়া বলেন, আমরা চাই আসল মদদদাতা, পৃষ্ঠপোষকদের বের করা হোক। যদি তা না হয়, তবে আমরা এ চার্জশীটের বিরুদ্ধেও নারাজি দেব। মানুষ খুন হবে,কিন’ তার বিচার হবেনা। তা হতে পারেনা। এভাবে দেশে চলতে পারে না।

গ্রেনেড হামলায় আহত বর্তমানে হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি মো. আবু জাহির বলেন, অবিলম্বে মামলার তদনে-র কাজ শেষ হবে এবং বর্তমান সরকারের আমলেই এর বিচার কাজ শুরু করা হবে।

তদন-কারী কর্মকর্তা সিআইডির এএসপি মেহেরুন্নেছা পারুল বলেন, আশাকরি যে চার্জশীট দেব তা সকলের কাছে গ্রহণযোগ্য হবে। তদন- এখন শেষ পর্যায়ে আছে। শিগগিরই তা আদালতে জমা দিতে পারব বলে আশা করছি।

শেয়ার করুন