হবিগঞ্জ জেলায় পৃথক ঘটনায় চারজনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, হবিগঞ্জ : নবীগঞ্জে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন, গৃহবধুর আত্মহত্যা : নবীগঞ্জের ছোট ভাইয়ের দা’র কুপে গুরুতর আহত বড় ভাই কামরুল ইসলাম(২৬) দু’দিন মৃত্যুর সাথে লড়াই করে অবশেষে সিলেট এমএজি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছে।

অপর দিকে উপজেলার গোয়ালজোড় গ্রামে এক গৃহবধুর আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয় লোকজন জানান,গত সোমবার বিকালে উপজেলার দেবপাড়া ইউনিয়নের সদরঘাট গ্রামের নৈর আলীর ছেলে কামরুল ইসলাম ছোট বোনকে বেপরোয়া চলাফেরার জন্য গাল মন্দ ও শাসন করে। এতে ছোট ভাই জহিরুল ইসলাম ক্ষিপ্ত হয়ে বড় ভাই কামরুল কে বটি দা’দিয়ে কুপ মারলে সে গুরুতর আহত হয়। মুর্মুষ অবস্থায় বাড়ির লোকজন তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। দু’দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে মঙ্গলবার বিকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়। এ ব্যপারে ওসি মোঃ আব্দুল বাছেদ বলেন,ঘটনাটি লোকমূখে শোনেছি তবে থানায় কোন অভিযোগ আসেনি। এ দিকে মৃত্যুর এক দিন অতিবাহিত হলেও থানায় কোন অভিযোগ না দেয়ার ঘটনাটি রহস্য জনক বলে গ্রামবাসী মনে করছেন। এ ছাড়া উক্ত ঘটনার ব্যপারে গ্রামের লোক জন মূখ খোলতে সাহস পাচ্ছেন না। তাদের মধ্যে অজানা আতংক বিরাজ করছে।
অপর দিকে দীঘলবাক ইউপির গোয়ালজোড় গ্রামের জালাল মিয়ার স্ত্রী নুরফুল বেগম(৪৩) গতকাল  বুধবার ভোরে পরিবারের লোকজনের সাথে রোজা রাখার জন্য সেহরী খায়। পরিবারের লোকজনের অগোচরে নুরফুল বেগম ঘরের বাথরুমের ভিতরে পড়নের কাপড় দিয়ে গলায় পেছিয়ে আত্মহত্যা করে। আত্মহত্যার কোন কারণ জানা যায়নি।
শায়েস্তাগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১, আহত ২ : ঢাকা সিলেট মহাসড়কের শায়েস্তাগঞ্জে পিকআপের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে ২জন। পুলিশ সুত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার ভোরে সিলেটগামী মাছ বুঝাই একটি পিকআপ (ঢাকা মেট্রো- ন ১৬-২৫৯৬) শায়েস্তাগঞ্জের দেউন্দি ক্রসরোডে মোটরসাইকেলের সাথে ধাক্কা লাগে। এতে মোটর সাইকেলের ৩ জন আহত হয়। আহতরা হল চুনারুঘাট উপজেলা রমাপুর গ্রামের জমির আলী(৩০), কুুতুব আলী(২৫), খেলা মিয়া(২৮। তিন জন কে গুরুতর অবস্থায় হবিগঞ্জ আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। মুমুর্ষ অবস্থায় জমির আলীকে ঢাকা নিয়ে যাওয়ার পথে মারা যায়। এ রিপোর্ট লেখা পযর্ন্ত অন্য ২জনের অবস্থা আশংকাজনক।
সড়ক দূর্ঘটনায় নবীগঞ্জে ১ আহত ২০ : ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জে অদক্ষ বাস চালকের বেপরোয়া গাড়ি চালানোর দায়ে জীবন দিল বাসের হেলপার রুহুল আমিন। অল্পের জন্য নিশ্চিত মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পেল প্রায় অর্ধ শতাধিক বাস যাত্রী। বাসযাত্রী হাফিজ শেকুল ইসলাম  জানান, বেপরোয়া গতিতে নিয়ন্ত্রনহীন ভাবে বাস চালাচ্ছিলেন ঘাতক চালক। অনেকবার তাকে বারন করার পর তিনি বাস দ্রুত গতিতে চালাচ্ছিলেন। এক পর্যায়ে নবীগঞ্জের কান্দিগাঁও নামক স্থানে চলন্ত ট্রাকের পেছনে ধাক্কা দেয় যাত্রীবাহী বাস। এতে মিতালি পরিবহনের (মৌলভীবাজার-জ ১১-০০৫১) যাত্রীবাহী বাস এবং ট্রাক (ঢাকা মেট্রো ড- ১১-২৭৬৬) দু’টিই খাদে পড়ে বাসের হেলপাড় রুহুল আমিন ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায়। এবং ট্রাকের চালক জুয়েল মিয়া (৩০), জনৈক হেলপার সহ বাসের প্রায় ২০ জন যাত্রী আহত হয়েছে। স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেরণ করেন। দূর্ঘটনা কবলিত ট্রাক চালক জানান, বাসের অদক্ষ চালকের বেপরোয়া গাড়ী চালানোর দায়ে দূর্ঘটনার শিকার হয়ে আমার প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। ঘাতক বাস চালক পালিয়ে গেছে বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা। নিহত বাসের হেলপার কুমিল¬া জেলার হোমনা থানার পঞ্চপ্রতি গ্রামের মুর্শেদ মিয়ার পুত্র বলে জানা গেছে। শেরপুর হাইওয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

শেয়ার করুন